You are currently viewing ছাত্রসেনাকে জড়িয়ে ভিত্তিহীন অসত্য সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদ

ছাত্রসেনাকে জড়িয়ে ভিত্তিহীন অসত্য সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদ

ছাত্রসেনাকে জড়িয়ে ভিত্তিহীন অসত্য সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদ জানিয়েছে সংগঠনটির নেতারা
.
চ্যানেল এসএফ নিউজ ডেস্কঃ
সম্প্রতি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজার সময় কুমিল্লা নগরীর নানুয়ার দীঘির পাড়ের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখার ঘটনায় প্রধান আসামী ইকবাল ও তার সন্ধিগ্ধ সহযোগীদের নিয়ে বসুন্ধরা গ্রুপের দু’টি জাতীয় দৈনিক কালের কন্ঠ ও বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। ‘পূজামণ্ডপে কোরআন রাখার ঘটনায় ইকবালের সঙ্গে যাদের যোগসূত্র’ শিরোনামে প্রকাশিত ঐ প্রতিবেদনের একটি অংশের ব্যাপারে আপত্তি ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা।

আজ ২৪ অক্টোবর ২০২১ ইংরেজি রবিবার বিকালে ছাত্রসেনার কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক রাশেদুল বারী স্বাক্ষরিত ও সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রসেনার কেন্দ্রীয় সভাপতি ছাত্রনেতা মারূফ রেযা ও সাধারণ সম্পাদক ছাত্রনেতা নুরুদ্দিন বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা নবী আদর্শের পতাকাবাহী সুফিধারার শান্তিপ্রিয় ছাত্রদের সংগঠন৷ জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাবাজীর বিপরীতে অপ্রতিরোধ্য প্রাচীর গড়ে তুলতে গিয়ে ছাত্রসেনার বহু নেতাকর্মীকে প্রাণ দিতে হয়েছে। ২০১৬ সালে যখন কিছু নামধারী ইসলামী সংগঠন দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার অপচেষ্টা চালায় তখন ছাত্রসেনা টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী রোড মার্চের আয়োজন করে ছাত্রজনতাকে জঙ্গিবাদ হতে সচেতন করে।
পূর্ণাঙ্গ যাচাই-বাছাই না করে দেশের দু’টি দৈনিক পত্রিকা কালের কণ্ঠ ও বাংলাদেশ প্রতিদিন ২৩ অক্টোবর-২০২১ইংরেজি তারিখে কুমিল্লার পূজামণ্ডপে কুরআন শরিফ রাখার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তারকৃত দুই ব্যক্তিকে ছাত্রসেনার সক্রিয় কর্মী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। অথচ এ দুই ব্যক্তির সাথে সংগঠনের কোন সম্পৃক্ততা নেই৷ তারা বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার কখনও কোন স্তরের দায়িত্বশীল, কর্মী কিংবা সমর্থক ছিলেন না। ছাত্রসেনা কর্তৃক মাজার পরিচালনা করা হয় না, শুধুমাত্র মাজারের খাদেম বলেই ছাত্রসেনার কর্মী মনে করা চরম মূর্খতা। তাছাড়াও ছাত্রসেনা ছাত্রদের সংগঠন, ৪০ উর্ধ্ব বয়স্ক দুইজন ব্যক্তিকে ছাত্রসেনার কর্মী নামে অভিহিত করা নিতান্ত মিথ্যাচার বৈ কিছুই নয়। তারা এমন মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে ধর্মীয় আবেগকে কাজে লাগিয়ে একদল অত্যুৎসাহী মুসলিম নামধারী সাম্রাজ্যবাদের দালালরা যখন স্বাধীন সার্বভৌম শান্তি সম্প্রীতির বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার দিকে ঠেলে দিয়ে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করছে, ঠিক তখনই ছাত্রসেনা শান্তিকামী সুফিবাদী উদার মতাদর্শ অনুযায়ী ইসলামের সঠিক রূপরেখার অনুসারী ছাত্রদের নিয়ে এসব দাঙ্গাবাজদের বিরুদ্ধে সামাজিক সচেতনতা তৈরি করছি। অথচ দুঃখজনক বিষয় দেশের শীর্ষস্থানীয় দু’টি দৈনিকে আমাদের সংগঠনকেই কুমিল্লার ঘটনায় সম্পৃক্ত করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে। এর তদন্তকার্যকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে সুকৌশলে মূল অপরাধীর আড়াল করা হচ্ছে। অথচ এ তথ্যের কোন সূত্র উল্লেখ করা হয়নি৷ সেসাথে পূর্ণাঙ্গ যাচাই-বাছাই ব্যতীত এমন উদ্ভট তথ্য উপস্থাপন উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে আমরা মনে করি। সংবাদ প্রতিবেদক সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়েছে, তাই প্রতিবেদনে নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে সক্ষম হয়নি৷ অবশ্যই সংবাদটি প্রকাশের পূর্বে পূর্ণাঙ্গ যাচাই-বাছাইয়ের প্রয়োজন ছিল৷ বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার চল্লিশ বছরে পথচলায় যখন শান্তি সম্প্রীতির বার্তা ছড়িয়ে পুরো দেশব্যাপী ছাত্রজনতার আস্থাশীল সংগঠনে রূপান্তরিত হয়েছে ঠিক তখনই এমন একটি উদ্ভট তথ্য দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাবাজদের সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে ৷ অথচ, সংবাদে উল্লিখিত ব্যক্তিদ্বয় শুধু বর্তমানে নয়, বরং কোন কালে কখনও বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার সাথে সম্পৃক্ত ছিল না বা নাই। আমরা প্রকাশিত এই মিথ্যা বানোয়াট ও অসত্য সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেসাথে সরকারের নিকট এ আহবান জানাই কুমিল্লার পূজামণ্ডপে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে কুরআন শরিফ রেখে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টির পাঁয়তারা করা সকলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা হোক৷ কেউ যেন এহেন ন্যক্কারজনক ঘটনা আর ঘটাতে সাহস না করে তাও নিশ্চিত করতে হবে।
.
এ বিবৃতি প্রসঙ্গে যোগাযোগ করা হলে ছাত্রসেনা সভাপতি মারুফ রেযা বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ ও তাঁর প্রদর্শিত নির্দেশনা অনুযায়ী শান্তি ও সাম্যের মাধ্যমে সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করেন। তিনিও আরো বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিস শরীফে এরশাদ করেছেন ‘জেনে রেখ! কোনো মুসলমান যদি অমুসলিম নাগরিকের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন করে, কোনো অধিকারের উপর হস্তক্ষেপ করে, তার কোনো জিনিস বা সহায়-সম্পদ জোরপূর্বক কেড়ে নেয়; তবে কেয়ামতের দিন আল্লাহর বিচারের কাঠগড়ায় আমি তাদের বিপক্ষে অমুসলিমদের পক্ষে অবস্থান করব।’ আমরা ছাত্রসেনার কর্মীরা মহানবীর উক্ত আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করি, বলেন ছাত্রনেতা মারুফ। হিংসাত্মক ও ধ্বংসাত্মক কাজে ছাত্রসেনা কখনও জড়িত ছিল না। একই প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসা করা হলে ছাত্রসেনার সেক্রেটারি নুরুদ্দিন বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা অহিংস ছাত্ররাজনীতির মডেল হিসেবে দেশ-বিদেশে সু-পরিচিত। ছাত্রসেনার এ সুনামকে নষ্ট করার কুমানষে কেউ কেউ চক্রান্ত করে আসছে। তার ফলশ্রুতিতে এ ধরণের মিথ্যাচার ও অপবাদ দেয়া হচ্ছে। মাজার ও মসজিদের সহকারী খাদেম হওয়ায় কুমিল্লার ঘটনার সন্দিগ্ধ আসামী মো. হুমায়ুন কবির ও মো. ফয়সাল আহমেদ বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার সক্রিয় কর্মী নামে অপপ্রচার করা হয়েছে উক্ত প্রতিবেদনে। যেমনিভাবে ২০১৬ সালে চট্টগ্রামের পুলিশের এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু হত্যাকাণ্ডে গ্রেপ্তারকৃত শিবির ক্যাডার আবু নছর গুন্নকে মাজার সংশ্লিষ্টতার দোহাই দিয়ে ছাত্রসেনা কর্মী নামে অভিহিত করার অপচেষ্টা করা হয়েছিল। একশ্রেণির লোকের বদ্ধমূল ধারণা মাজারের সাথে সংশ্লিষ্ট হলেই তারা ছাত্রসেনা সম্পৃক্ত, অথচ ছাত্রসেনা ছাত্রদের সংগঠন, মাজার কেন্দ্রীক সংগঠন নয়। তাই অযথা মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত এ শান্তির কাফেলার ৪০ বছরের অহিংস পথচলায় আছড় ফেলতে পারবে না। © Channel SF

Leave a Reply